মানসম্পন্ন শুঁটকি শিল্পের জন্য ১৯৯ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন


সকালের-সময় রিপোর্ট  ৪ নভেম্বর, ২০২০ ৬:০৪ : পূর্বাহ্ণ

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) মাছের অপচয় কমিয়ে মানসম্পন্ন শুঁটকি উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কক্সবাজার জেলায় শুঁটকি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প স্থাপনের জন্য ১৯৯ কোটি টাকার একটি প্রকল্পসহ মোট চারটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে।

মঙ্গলবার একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত চলতি বছরের একনেকের ১৪তম সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়। সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এবং একনেকের অন্য সদস্যরা এনইসি ভবন থেকে যুক্ত ছিলেন।

সভা শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনার বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম বলেন, আজ চারটি মন্ত্রণালয়ের চারটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। প্রকল্পের মোট আনুমানিক ব্যয় দুই হাজার ৪৫৯ কোটি ১৫ লাখ টাকা (দুটি সংশোধিত প্রকল্পের অতিরিক্ত ব্যয়সহ) ধরা হয়েছে। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে এক হাজার ৬৬৯ কোটি ৩১ লাখ, সংস্থাগুলোর নিজস্ব অর্থায়ন ১৮২ কোটি ১৪ লাখ এবং বিদেশি ঋণ ৬০৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা।

সচিব বলেন, কক্সবাজার জেলায় শুঁটকি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প স্থাপন প্রকল্পটি ১৯৮ কোটি ৭৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে।

বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশন কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল মৌজায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে মানসম্পন্ন শুঁটকি উৎপাদন, অপচয় হ্রাস, শুঁটকির উৎপাদন বৃদ্ধি এবং শুঁটকি সংরক্ষণ ও বিপণন ব্যবস্থার উন্নতি করা।

একনেক ‘যমুনা নদীর ডানতীর ভাঙন থেকে সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর উপজেলাধীন সিংড়াবাড়ী, পাটগ্রাম ও বাঐখোলা এলাকা সংরক্ষণ’ প্রকল্পও অনুমোদন দিয়েছে। এতে খরচ হবে ৫৬০ কোটি সাত লাখ টাকা। ২০২০ সালের অক্টোবর থেকে ২০২৩ সালের জুনের মধ্যে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

অন্য দুটি প্রকল্প হলো- ৫৫১ কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ‘পাঁচদোনা-ডাঙ্গা-ঘোড়াশাল জেলা মহাসড়কে একস্তর নিচু দিয়ে উভয় পার্শ্বে পৃথক সার্ভিস লেনসহ চার-লেনে উন্নীতকরণ (ডাঙ্গা বাজার-ইসলামপুর লিংকসহ)- প্রথম সংশোধিত’ প্রকল্প এবং এক হাজার ১৪৮ কোটি ৭৮ লাখ টাকা ব্যয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ‘আমিনবাজার-মাওয়া-মোংলা ৪০০ কেভি সঞ্চালন লাইন- প্রথম সংশোধিত’ প্রকল্প।

সচিব আরো জানান, পানির প্রবাহ স্বাভাবিক রাখতে প্রধান নদীগুলোতে ড্রেজিংয়ের সঠিক পরিকল্পনা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ড্রেজিং সংশ্লিষ্ট প্রকল্প শিগগিরই একনেকে উপস্থাপন করতে এবং ড্রেজিং নিয়ে স্থায়ী পরিকল্পনা বা ব্যবস্থা দিতে বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী প্রকল্প নির্দিষ্ট সময়ে শেষ করতে পুনরায় জোর দিয়েছ্নে।

সকালের-সময়/এমএফ

Print Friendly, PDF & Email

আরো সংবাদ