বাঁশখালীতে আবারও হাতির মৃত্যু, তদন্ত শুরু


সকালের-সময় রিপোর্ট  ২৯ জুন, ২০২০ ১১:১৪ : অপরাহ্ণ

বাঁশখালীর পুকুরিয়া বৈলগাঁও পাহাড়ি এলাকার লটহল ধলতলীতে এক মৃত হাতি পাওয়া গেছে। আজ সোমবার (২৯ জুন) দুপুরে মৃত হাতির ময়নাতদন্ত করেছে উপজেলা প্রাণীসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সবুজ কান্তি নাথ ও শুভ কান্তি দাশ-এর সমন্বয়ে একটি দল।

৭/৮ বছর বয়সী হাতিটি বিষক্রিয়ায় মারা গেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এ নিয়ে চলতি বছরে বাঁশখালীর সাধনপুর রেঞ্জের আওতায় পাহাড়ি এলাকায় ৩টি হাতির মৃত্যু হলো। চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি সাধনপুর পাহাড়ে এক হাতির মৃত্যু হয়। এরপর ৩০ মার্চ সাধনপুর লটমনি পাহাড়ে এবং ২৩ মে একইভাবে হাতির মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও বনবিভাগের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা যায়, পুকুরিয়া বৈলগাঁও পাহাড়ি এলাকার লটহল মৌজার ধলতলীতে মৃত হাতি দেখতে পেয়ে স্থানীয় জনগণ বনবিভাগকে খবর দিলে বনবিভাগ কর্তৃপক্ষ প্রশাসনকে অবহিত করে। তারপর আজ উপজেলা প্রাণীসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সবুজ কান্তি নাথ ও শুভ কান্তি দাশ-এর সমন্বয়ে হাতির ময়নাতদন্ত করা হয়।

উপজেলা প্রাণীসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সবুজ কান্তি নাথ বলেন, মৃত হাতিটির ময়নাতদন্তের জন্য প্রয়োজনীয় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে বিষক্রিয়ার কারণে মারা যেতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বনবিভাগের সাধনপুর রেঞ্জ-এর পুকুরিয়া বনবিট কর্মকর্তা মনসুর আহমদ বলেন, কীভাবে হাতিটি মারা গেছে এখনৗ পর্যন্ত তা জানা যায়নি তবে বিস্তারিত জানার জন্য চেষ্টা চলছে। উল্লেখ্য, এশিয়ার একমাত্র হাতির প্রজনন কেন্দ্র হিসাবে স্বীকৃত চুনতি অভয়ারণ্য এ বাঁশখালীর পাহাড়ি জনপদ। চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের আওতায় জলদী অভয়ারণ্য রেঞ্জ ও কালীপুর রেঞ্জের আওতায় ৮টি বিট অফিস রয়েছে।

বাঁশখালীর জলদী, চাম্বল, নাপোড়া, পুইঁছড়ি, কালীপুর, বৈলছড়ির চেচুরিয়া, সাধনপুর ও পুকুরিয়া বিট অফিসের পাহাড়ি এলাকায় প্রায় সময় পাহাড়ি হাতি হানা দিয়ে বসতবাড়ি, ফসলী জমি তছনছ ও মানুষের মৃত্যুর ঘটনা সংঘটিত হয়।

তাছাড়া চলতি বছরে জ্ঞাতভাবে ৫টি হাতির এবং অজ্ঞাতসারে আরও হাতির মৃত্যু হয়েছে বলে জানা যায়। সর্বশেষ গত ১৩ জুন বৈলছড়ির অভ্যারখীল পাহাড়ে হাতিকে মেরে গোপনে পুঁতে ফেলার এবং হাতিটি থেকে দাঁতসহ প্রয়োজনীয় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটে।

Print Friendly, PDF & Email

আরো সংবাদ