বহদ্দারহাটে সন্ত্রাসী হামলায় দু’জন আহত, প্রাণনাশের হুমকি!


সকালের-সময় রিপোর্ট  ১৩ মে, ২০২০ ৯:২২ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামে বহদ্দারবাড়ীর চেয়ারম্যান ঘাটার মরহুম সিরাজউদ্দোলা পরিবার ৫০ বছর ধরে নিজ জমিতে ঘর নির্মান করে বসবাস করে আসছে। কিন্তু এলাকার চিহ্নিত ভূমিদূস্যদের অবৈধ বাধা, চাদাঁদাবী ও হয়রানিসহ প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার উত্তর জোনের উপ পুলিশ কমিশনার বরাবর একটি অভিযোগও দাখিল করেছেন এই ভূক্তভোগী পরিবার।

লিখিত অভিযোগ আক্তার বেগম বলেন, দীর্ঘ ৫০ বছরের স্বামীর বসতভিটাই বসবাস করে আসছে আমার পরিবার। বিগত ১০ বছর পূর্ব থেকে উক্ত ঘরের ভিতর বন্যার পানি আর বৃষ্টির পানিতে বাড়ীঘর নিমজ্জিত থাকে। যেকারনে এলাকার গন্যনাম্য ব্যক্তিবর্গের অনুমতি সাপেক্ষে বসবাসকৃত জায়গায় উঁচু করে ঘর নির্মানের কাজ করতে থাকলে পার্শ্ববর্তী আবুল কালাম আযাদ, কুতুব উদ্দীনসহ আক্তার বেগমের জায়গায় ঘর নির্মান কাজে অবৈধভাবে বাঁধা, চাদাদাবী, ও প্রাণনাশের হুমকী দিয়ে আসছে।

এমনঅবস্থায় কতুব উদ্দীন, আবুল কালাম আজাদ, ও তার ভাগিনা মোহাম্মদ ইমন, কতুবের ছেলে তুহিন, দিলুয়ারা, মোহাম্মদ রাখিব, কতুবের স্ত্রী পারভীন আক্তারসহ স্থানীয় কিছু সন্ত্রাসীরা আজ সন্ধায় ইফতারের পূর্বমুহূর্তে আক্তার বেগমের বসত ভিটায় মিস্ত্রি নিয়ে সংস্কারের কাজ করা অবস্থায় হঠাৎ করে আক্তার বেগমের ছেলে রাসেল কে এলোপাথাড়ি ইট মেরে আহত করে বেহুস করে ফেললে স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করায়। সে বর্তমানে নিউরি সার্জারি বিভাগে সিকিৎসাধীন রয়েছেন।

অপরদিকে আক্তার বেগমের দেবর তাজুল ইসলামের ভাইকেও আযাদ, তার ভাগিনা ইমনসহ মারাত্মক ভাবে তারেকের মাথাই জখম করে, এবং ইট দিয়ে মেরে তার মুখের দু’টি দাত ভেঙ্গে পেলে। সেও বর্তমানে ৮১নং ওয়ার্ড ওরাল এন্ড ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারী বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন।

এ বিষয়ে চান্দগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান খোন্দকার জানান, কারও ঘর সংস্কার কাজে কেউও গিয়ে সন্ত্রাসী হামলা করা এটা মারাত্মক অপরাধ, তবে আমি স্পটে পুলিশ পাঠিয়েছি, ওরা পরিস্থিতি শান্ত রেখেছে, এই ব্যাপারে ভূক্তভোগী পরিবার মামলা করতে চাইলে অবশ্যই মামলা করতে পারবে।

বর্তমানে আক্তার বেগমের পরিবার ছেলের বউ ও ছোট নাতি নাতনি নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এছাড়া নিজ জমিতে ঘর নির্মান ও জীবনের নিরাপত্তার দাবীতে চট্টগ্রাম পুলিশ কমিশনার মহোদয়, স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

সকালের-সময়/এমএফ

Print Friendly, PDF & Email

আরো সংবাদ