কালুরঘাট সেতুর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি আইয়ুব আলীর, নির্বিকার রেল!


মোহাম্মদ ফোরকান ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১১:৫৬ : পূর্বাহ্ণ

কালুরঘাট রেল সেতুর টোল আদায়কারী প্রতিষ্ঠান
এন এন কে এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে। রেলের কিছু অসাধু কর্মকর্তার সঙ্গে যোগসাজশে পূর্ব রেলের কালুর ঘাট সেতুর প্রায় সরকারের ১ কোটি ৪৭ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে এন এন কে এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো: আইয়ুব আলীসহ তার সেন্ডিকেট।

জানা যায়, চলতি বছরে কালুরঘাট সেতুর টোল আদায়ের জন্য আন্ডারগ্রাউন্ড একটি পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি ছাপিয়ে গোপনে টেন্ডার আহ্বান করে পূর্ব রেল। এতে দেখা যায় দরপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ছিল গত ২৯ জানুয়ারি ২০২০ সাল। নির্ধারিত সময়ে মাত্র দুটি দরপত্র জমা পড়ে রেলে। এর মধ্যে রয়েছে বোয়ালখালীর ব্যবসায়ী মনছুর আলম পাপ্পীর প্রতিষ্ঠান আমরিন এন্ড ব্রাদার্স ও আইয়ুব আলীর প্রতিষ্ঠান এন এন কে এন্টারপ্রাইজ।

একপর্যায়ে দুই প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমঝোতা হয়ে যাওয়ায় আমরিন এন্ড ব্রাদার্স পে অর্ডার না করায় এন এন কে এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো: আইয়ুব আলী ২ কোটি ৬১ লাখ টাকায় কাজ পেয়ে যায়। অথচ একই প্রতিষ্ঠান গত বছর কালুরঘাট সেতুর টোল আদায়ের কাজ পেয়েছিল ৪ কোটি ৮ লাখ টাকার।

এ বিষয়ে টোল আদায়কারী এক কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে সকালের-সময়কে জানান, কালুরঘাট সেতু থেকে প্রতি মাসে কোটি কোটি টাকার উপরে টোল আদায় হয়। যা বছর শেষে প্রায় ১২ থেকে ১৫ কোটি টাকা পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছে। অভিযোগ রয়েছে, গত কয়েক বছর ধরে রাজনৈতিক প্রভাব কাটিয়ে কর্মকর্তাদের যোগসাজশে আইয়ুব আলী সিন্ডিকেট গোপনে কালুরঘাট সেতুর টোল আদায়ের ইজারা নিয়ে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিচ্ছে।

জানা যায়, এন এন কে এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আইয়ুব আলী ও জুবলী ইন্টারপ্রাইজের শাহ আলমের সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে আধিপত্য বিস্তার করছে রেল ভবনে। যার কারণে রাজস্ব ফাঁকির বিষয়টি জানাজানির পরও রেল কর্তৃপক্ষ এখনো তাদের ব্যপারে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

সম্প্রতি হেলাল আকবর চৌধুরী বাবরের সাথে তাদের মধুর সম্পর্ক এখন ফাটল সৃষ্টি হয়েছে শুধু মাত্র ভাগবাটোয়ারার কারণে। অভিযোগ আর পাল্টা অভিযোগে পূর্ব রেল ঘিরে আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে তাদের নিজস্ব ক্যাডার বাহিনী। যে কোন সময় আবারো ঘটতে পারে বড় ধরণের দুর্ঘটনা।

আরও জানা যায়, আইয়ুবের বিরুদ্ধে পূর্ব রেলে শত শত কোটি টাকার টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ ও রাজস্ব ফাঁকি দেয়ার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। অসাধু রেল কর্মকর্তাদের যোগসাজশে এন এন এ ইন্টারপ্রাইজ আইয়ুবের টেন্ডারবাণিজ্যের কারণে সরকার প্রতিবছর কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে। রেল খেকো কিছু কর্মকর্তার কারণে রেল এখনো সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারছেনা এই কারণে।

এ বিষয়ে জানার জন্য এন এন কে এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আইয়ুব আলীর মোঠোফোনে একাদিক বার কল দেওয়ার পরও মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়ায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে পূর্ব রেলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) সরদার সাহাদাত আলীকে কালুরঘাট সেতুর ইজারার দেড় কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকির কথা অবহিত করিলে তিনি সকালের-সময়কে বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। তবে, সে যে হোক না কেনো সরকারের রাজস্ব তাকে দিতেই হবে। না হয় তার সিকিউরিটি মানি বায়েজাপ্ত করা হবে, এবং তার লাইসেন্সও বাতিল করা হবে। এখানে রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এই ব্যাপারে কোজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আর এ দিকে রেলের টাকার বাগবাটোয়ারা নিয়ে যুবলীগ ক্যাডার বাবরের সাথে আইয়ুব আলীর সমস্যা যেনো লেগেই আছে। এ ব্যাপারে তিনি সম্প্রতি খুলশি থানায় একটি জিডি ও করেছেন বাবরের বিরুদ্ধে। আরেকজন ঠিকাদার শাহ আলম এক কোটি ২৬ লাখ টাকার একটি প্রাডো জিপ আত্মসাতের অভিযোগ এনে সদরঘাট থানায় আরও একটি জিডি করেছেন বাররের বিরুদ্ধে। তাহলে প্রশ্ন তাদের ডায়েরি করতে হলো কেনো?

অভিযোগে জানা যায়, এন এন ইন্টারপ্রাইজের মো: আইয়ুব আলী তখন অভিযোগ করেছিলেন, বাবরকে চাঁদা না দিলে ব্যবসা-বাণিজ্য বন্ধ ও চট্টগ্রাম ছাড়া করার হুমকি দেয়া হয়। এ কারণে তিনি জিডি করেছেন। অন্যদিকে রেলওয়ের ঠিকাদার শাহ আলম জিডি করেছেন তার সোয়া কোটি টাকা দামের একটি প্রাডো জিপ আত্মসাতের অভিযোগ এনে। ব্যবহারের জন্য দেয়া ওই জিপ ফেরত চাওয়ায় শাহ আলমকেও হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে জিডিতে অভিযোগ করা হয়। তাহলে প্রশ্ন! কেনো বাবরকে এসব দেওয়া হয়েছিল?

সূত্র জানায়, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের শত শত কোটি টাকার টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ করেন আইয়ুব আলী, শাহ আলম ও হেলাল আকবর চৌধুরী বাবর। আইয়ুব আলী, শাহ আলম নিজেও রেলওয়ের অনেক ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করেন এখন। এই ঠিকাদারি ব্যবসার ভাগ-বাটোয়ারা নিয়ে তিনজনের মধ্যে বেশ কিছু দিন ধরে স্নায়ুযুদ্ধ চলছে। জিডি দায়েরের মাধ্যমে তিনজনের বিরোধ প্রকাশ্যে চলে এসেছে।

সকালের-সময়/এমএফ

Print Friendly, PDF & Email

আরো সংবাদ