কর্ণফুলীতে তেলচোর নাছিরের অবাধ রাজত্ব!


মোহাম্মদ ফোরকান ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ৩:৫৯ : পূর্বাহ্ণ

কর্ণফুলীতে হাজার হাজার লিটার জ্বালানি তেল বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) তেলবাহী জাহাজ থেকেই চুরি হয়ে যাচ্ছে রাতের আধারে। আর ওই জ্বালানি তেল চুরির সাথে খোয়াজ নগর, আজিম পাড়ার মরহুম আব্দুল সোবাইনের ছেলে মোহাম্মদ নাছির (প্রকাশ বেনসন নাছির) জড়িত বলে খবর পাওয়া গেছে। তাছাড়া ডিপো কর্মকর্তা ও জাহাজের লোকজন এই তেল চুরির সাথে জড়িত।

বছরের পর বছর ধরে এই চোরা তেলের কারবার চললেও কোনো প্রতিকার বা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। প্রতিদিন সন্ধ্যা হলেই কর্ণফুলীর নদীর বুকে নোঙ্গর করা তেলের জাহাজ থেকে পদ্মা, মেঘনা, যমুনা অয়েল কোম্পানির ডিপো থেকে চোরাকারবারিদের গভীর রাত পর্যন্ত তেল চুরির মহোৎসব চলে।

তেল চোরাকারবারি বেনসন নাছির তার সিন্ডিকেটের লোকজন দিয়ে নদীর দুই পাড়ে অনেকগুলো অবৈধ তেলের দোকান গড়ে তুলেছে। ওসব চোরাই তেল দোকান হয়ে পাইকারি ও খুচরা গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে যায়। ছোট ছোট দোকান, অয়েল ফিলিং স্টেশন, গাড়ির গ্যারেজ, বড় শিল্পকারখানাসহ বিভিন্ন জায়গাতেই ওই চোরাই তেল যায়। যার কারণে বিপিসি সারাবছর লোকসান গুনে বলে মন্তব্য করেছেন বিপিসি সংশ্লিষ্ট সূত্র।

সরেজমিনে নরুল ইসলাম চেয়ারম্যান জামে মসজিদ ফকির মামার মাজারের ডান পাশে বেনসন নাছিরের চোরা তেলের ডিপোতে গিয়ে দেখা যায়, বেনসন নাছির বিস্পোরক অধিদপ্তরের ‘জে ফরম’ লাইসেন্সসহ ডিজেল ও কেরোসিন ব্যবসার গ্রাম্য লাইসেন্সের আড়ালে সাগরে থাকা বড় বড় জাহাজ মাদার ভেসেল থেকে বন্দরের ছোট ছোট জাহাজ, কান্ডারী, জরিপ, আলী, ঝর্ণা থেকে রাতের গভিরে প্রতিদিন হাজার হাজার লিটার তেল চুরি করছে। যা তার ডিপুতে মজুদ রেখে ট্রাক যোগে পাচার করছে। তার ঐ ডিপুতে নেই কোন অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা, নেই কোন পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড় পত্র। সরকারের লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে রাতের আধাঁরে প্রশাসন ও স্থানী নেতাদের ম্যানেস করে এই কারবার করছেন বেনসন নাছির।

নাছিরের চোরা তেলের ডিপু ছবি: সকালের- সময়

এমনকি রাতের আধারে তেল চুরির আড়ালে বিভিন্ন মাদকসহ বিদেশি চোরাই পণ্য খালাস করে বলেও জানান নাম প্রকাশ না করা অনেক সাম্পান মাঝি। এ কাজের জন্য বেনসন নাছিরের রয়েছে বিশাল সিন্ডিকেট। সেই সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত স্থানীয় প্রভাবশালীরাও। বেনসন নাছিরের সুনির্দিষ্ট কোন বৈধ ব্যবসা বানিজ্য না থাকলেও সে বিস্পোরক অধিদপ্তরের ‘জে ফরম লাইসেন্সকে’ হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে চোরা তেলের ব্যবসা করছেন।

সুত্র জানায়, রাতের আধারে পুরাতন ব্রীজঘাট, চরপাথরঘাটা সাম্পান-মাঝি সমিতির ঘাট দিয়ে হাজার হাজার লিটার তেল চুরি করে বেনসন নাছির তার অবৈধ ডিপুতে মজুদ করে তা ভোরে বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে দেয়। যাতে সকাল হতে না হতেই কেউও চোরা তেল এমনটা যাতে বুঝতে না পারে।

চোরা তেলের ডিপুর সাথে নাছিরের অফিস। ছবি: সকালের-সময়

বেনসন নাছিরের এই অপকর্মে কেউ মুখ খোলার সাহস করে না। তার এই ক্ষমতার পেছনে ইন্ধন যোগাচ্ছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী নেতা ও প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তা। তাদের যোগসাজশে ও আশ্রয় প্রশ্রয়ে তেল চুরি হচ্ছে বন্দর, কর্ণফুলীর জুলধা, ডাঙ্গারচর, শিকলবাহা সহ অনেক ঘাটে। সাধারণ মানুষের অভিযোগ, চোরাকারবারি বেনসন নাছিরসহ বেশির ভাগ তেল চোরের বাড়ি চট্টগ্রাম বন্দর ও কর্ণফুলী এলাকায় বলে জানা যায়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, এসব তেল চোরাকারবারীদের সবচেয়ে বড় আস্তানা রয়েছে জুলধা ইউনিয়নের ডাঙ্গারচর ৯ নং ঘাট ও পুরাতন ব্রিজ ঘাটের সাম্পান মাঝি সমিতি ঘাট। বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল কোম্পানী পদ্মা, মেঘনা, যমুনার তেলের পাইপ ছিদ্র করে প্রতিদিন রাতে বিপুল পরিমাণ তেল চুরি করে সেখানে মজুদ করা হয়।

রাতে মাদক ও তেল পাচারের সহায়ক নৌ-যান হিসেবে বেনসন নাছিরের রয়েছে নিজস্ব নৌকা আর স্পীডবোট। এসব অপকমের্র মূল সহায়তাকারী হিসেবে উল্লেখিত জাহাজ ও ডিপোর এক শ্রেণির কর্মকর্তা এবং জাহাজের কতিপয় কর্মচারীর যোগসাজশে নিয়মিত তেল চুরি হচ্ছে। আর চুরি করা তেলে ওই এলাকায় গড়ে উঠেছে তেলের কালোবাজারি ব্যবসা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বিদেশ থেকে আমদানি করা পরিশোধিত এবং অপরিশোধিত তেল প্রথমে চট্টগ্রাম বন্দরে আসে। সেখান থেকে ছোট জাহাজযোগে বিতরণ কোম্পানির ডিপোতে সরবরাহ করে বিপিসি। চট্টগ্রাম থেকে যে পরিমাণ তেল জাহাজে ভরা (লোড) হয়, একই পরিমাণ তেল জাহাজগুলোকে গন্তব্য ডিপোতে খালাস (আনলোড) করতে হয়।

বড় জাহাজ থেকে জ্বালানি তেল নিয়ে ছোট জাহাজগুলো বিভিন্ন ডিপোতে পৌঁছে। কিন্তু লোডিং পয়েন্টের তেলের পরিমাণ এবং আনলোডিং পয়েন্টের তেলের পরিমাণে ৫০/৬০ হাজার লিটারের গড়মিল পাওয়া যায় সবসময়। মূলত চুরির কারণে ওই গরমিল হয় বলে জানা বিপিসি।

সম্প্রতি বিপিসির নিজস্ব তদন্ত দলও তেল চুরির প্রমাণ পেয়েছে বলে জানা যায়। কর্ণফুলী নদীর দুপাশে নামে-বেনামে অসংখ্য তেলের দোকান রয়েছে। ওসব তেলের দোকানে অধিকাংশেরই পদ্মা, মেঘনা, যমুনা তেল কোম্পানির সঙ্গে কোনো চুক্তি নেই। যার কারণে তেল কালোবাজারির সঙ্গে স্থানীয় অনেক নেতা ও তাদের কর্মী-অনুসারীরা জড়িত।

সূত্র আরো জানায়, বিদেশ থেকে জ্বালানি তেল নিয়ে বন্দরে এসে তেল খালাস হওয়ার আগ পর্যন্ত যে কয়দিন জাহাজগুলো নদীতে অপেক্ষমাণ থাকে, প্রতিরাতেই ওসব জাহাজ থেকে তেল চুরি হয়। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসন ম্যানেস থাকাই সবসময় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারছে না। আবার বিপিসি বা পেট্রোলিয়াম ডিপোগুলোর কর্মকর্তাদের সাথে সখ্যতা থাকাই এ ব্যাপারে কেউ তেমন কোন অভিযোগ করে না বলেই তারা পার পেয়ে যায়।

স্থানীয়রা জানান, রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে মোহাম্মদ নাছির একসময় চোরাকারবারিদের ব্লেকি বেনসন সিগারেট কেরি করত, তখন থেকে তার নাম পাটে বেনসন নাছির, চোখের সামনে এখন বেনসন নাছির চুরি করা তেল বিক্রি করে এখন বনে গেছেন কোটি কোটি টাকার অর্থ বিত্তের মালিক।

এমনও শোনা যাচ্ছে, ঘাটে ঘাটে মোটা অংকের টাকা দিয়ে দিনে ১০ লাখ টাকার সরকারি তেল চুরি করছে বেনসন নাছিরের সিন্ডিকেট। কিন্তু প্রশাসন দেখেও দেখছে না। দুদকও এখনো যেতে পারেনি তাদের গড়া অবৈধ সম্পদের নাগালে।

স্থানীয় সূত্রে জানায়, কর্ণফুলীর প্রতিটি ঘাট ও প্রশাসন বেনসন নাছিরের সিন্ডিকেটের নিয়ন্ত্রণে। ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও প্রশাসনের মাসিক চাঁদার পরিমান নাকি ১০ লক্ষ টাকা প্রায়। যার একটি অংশ, চট্টগ্রাম শহরের প্রভাবশালী এক নেতা, বন্দর এলাকার হর্তাকর্তা, এমপির এপিএস খ্যাত তিন ব্যক্তি, দলীয় পদে থাকা কর্ণফুলী উপজেলার কয়েকজন নেতাকর্মী, বন্দর, ইপিজেড, কর্ণফুলী এলাকার স্থানীয় প্রশাসন।

এছাড়াও পটিয়া ও কর্ণফুলীর কিছু আঞ্চলিক পত্রিকার বির্তকিত গণমাধ্যমকর্মীর পকেটেও মাসিক মাসোহারা দেন চোরা নাছির। চোরাতেল ব্যবসার সাথে মাদকসহ নানা জাহাজি পণ্য চুরি তার সাথে মানবপাচারের মতো নানা অভিযোগ উঠেছে বেনসন নাছিরের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, প্রতি মাসে শহরের আগ্রাবাদের একটি বিলাস বহুল হোটেল ও পতেঙ্গা বোট ক্লাবে ক্ষমতাসীন দলের পদে থাকা নেতাদের নিয়ে বিলাসি আড্ডার ফাঁকে মাসোয়ারার হিসাব মিটিয়ে নেয় বেনসন নাছির। এলাকাবাসী অভিযোগে আরো জানায়, বেনসন নাছিরসহ তার সেন্ডিকেট আজ জিরো হতে হিরো।অবৈধ চোরাকারবারি করে বিপুল সম্পত্তির মালিক ও জমিজামার দখল-বেদখল বানিজ্য করে টাকার কুমির বনে গেছেন সে।

ধরাকে সরা জ্ঞান করে কিছু প্রশাসনের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের হাত করে বেনসন নাছির নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে কর্ণফুলীর সম্পূর্ন তেলচোরীর ব্যবসা। যার রাজত্ব কায়েম চলছে কর্ণফুলী নদী আর সাগর চ্যানেলে। গড়ে তোলেছেন সে টাকার পাহাড়। প্রসাশন ম্যানেস থাকায় দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে চোরা নাছির। ফলে বছর শেষে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল কোম্পানীগুলো লোকসানে পড়ছে। এসব লোকসান উত্তরণের পাশা পাশি চোরাকারবারী বেনসন নাছিরকে আইনের আওতায় আনার জোরদাবী ও প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন স্থানীয়রা।

পুরান ব্রিজঘাট সাম্পান মাঝি সমিতির অফিসের খালের মুখ। এ স্থান দিয়ে রাতে চোরা তেল উঠায়। ছবি: সকালের-সময়

এ বিষয়ে বেনসন নাছিরের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সকালের- সময়কে বলেন, আমি তেল চুরি করি এতে আপনার কি সমস্যা! আমার বৈধ কি আছে কি নাই তা আমি আপনাকে কেনো দেখাব! এ বিষয়ে প্রশাসন জানে, আপনার নিউজ করতে ইচ্ছে হলে নিউজ করে দেন, পারলে র‍্যাব নিয়ে এসে আমায় ধরিয়ে দেন! এবং প্রতিবেদকে প্রাণনাশের হুমকী দিয়ে লাইন কেটে দেয়।

কিন্তু বিভিন্ন সময় তেল চুরির বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বিপিসি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। গত ১৪ মার্চ তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন জমা দেয়। ওই প্রতিবেদনে জাহাজ ও ডিপু থেকে তেল চুরির সত্যতা পায় বিপিসি। একইসঙ্গে ভবিষ্যতে তেল চুরি প্রতিরোধে ১১টি সুপারিশ বাস্তবায়নের আহবান জানিয়েছে কমিটি। তেল চুরির সাথে জাহাজের সুপারভাইজার এবং পদ্মা, মেঘনা, যমুনা, পেট্রোলিয়ামের ডিপো ইনচার্জরা জড়িত থাকার প্রমাণ মেলে।

এদিকে বিপিসি সংশ্লিষ্টরা জানান, কর্ণফুলীর পাড়ে নামে-বেনামে জ্বালানি তেল সরবরাহ ও ট্রেডিং প্রতিষ্ঠান খুঁজে পেয়েছে বিপিসির তদন্ত দল। কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী অবৈধ তেলের দোকান উচ্ছেদের জন্য জেলা প্রশাসককে চিঠি দেয়া হয়েছে। তবে এখনো ওসব অবৈধ দোকানপাটগুলো উচ্ছেদ হয়নি। বরং বহাল-তবিয়তেই তারা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এমনকি তদন্তে যেসব চোরাকারবারির নাম এসেছে তারা এবং তাদের অনুসারীরা ডিপো এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের চেয়ারম্যান মো. সামছুর রহমান সকালের-সময়কে জানান, তেল চোরদের সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তাদের যে নামগুলো এসেছে তাদের ব্যাপারে আরো তদন্ত করতে এবং তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য খতিয়ে দেখতে দুদককে অনুরোধ করা হয়েছে। পাশাপাশি মন্ত্রিপরিষদ সচিবের মাধ্যমে এ বিষয়ে চট্টগ্রামের ডিসিকে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা ও নিয়মিত মনিটরিংয়ের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

প্রিয় পাঠক, তেল চোর নাছিরের আরো ভয়ঙ্কর তথ্য জানতে আগামী পর্বে চোঁখ রাখুন।  

Print Friendly, PDF & Email

ট্যাগ :

আরো সংবাদ